Articles published in this site are copyright protected.

নাজমা মোস্তফা

মানুষকে জোর জবরদস্তি করে ধর্মান্তর করা ধর্মের নিষেধ। জোর করা ছাড়া এ ধর্মের বানী প্রচার করার দায়িত্ব মুসলিমদের। তাই দৃশ্যত এ মহান ধর্মটির সুমহান ঐতিহ্য মাধুর্য্যে মোহিত হয়েই অত্যাচারের নিগড় থেকে নির্যাতীত মানুষরা যুগে যুগে ধর্মান্তরিত হয়ে এসেছে তাদের নিজেদের ইচ্ছায়। মুসলিমরা একে অন্যের ভাই। মুসলিমরা নেহরুর আজন্ম বৈরী হলেও পন্ডিত জওহরলাল নেহরুর বক্তব্যে এ সত্যও উঠে এসেছে যে, মানুষ প্রথম গণতন্ত্রের স্বাদ গ্রহণ করে ইসলাম থেকেই। । — “নিজের উপর আস্থা এবং বিশ্বাস একটি বড় জিনিস। ইসলাম ধর্মের বাণী হচ্ছে, ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা সবাই ভাই ভাই। এতে করে লোক গণতন্ত্রের কতকটা আঁচ পায়। অতীতে খৃষ্টধর্ম যেরুপ বিকৃত হয়ে পড়েছিল তাতে এ ভাতৃত্বের বাণী কেবল আরব জাতিকেই নয়, অন্যান্য দেশের অধিবাসীদের মনেও সাড়া জাগাতে সক্ষম হয়েছিল”। (বিশ্ব ইতিহাস প্রসঙ্গে, পন্ডিত জওহরলাল নেহরু, পৃষ্ঠা ১২৩)। সংকীর্ন চিন্তার মানুষরা এ সাড়া জাগানোকে সহজভাবে নিতে পারে নি বরং এর জবাবে তারা আজীবন বিদ্বেষের তাপে আগুণ দিয়ে যায়। যদিও এ ধর্মের বানী সবসময়ই সহনশীলতায় বিশ্বাসী। যার কারণেই মুসলমানরা অপর ধর্মধারীদের থেকে অনেক বেশী সহনশীল। কিন্তু বর্তমান সময়কার মিডিয়ার প্রচার কৌশলে সে প্রকৃত সত্য বাস্তবতা থেকে অনেক দূরে অবস্থান করছে। শাস্ত্র নাড়ার ক্ষমতা না থাকলেও হিন্দু ধর্মে নারীর সৃষ্টি হয়েছে স্বামীকে পূজো করবে বলে। স্বামী যদি মরেও যায় বা তাকে বিক্রি করে দেয় বা ত্যাগ করে তারপরও তাকে পুরুষের পূজো দিতে হবে (মনুসংহিতা ৯অঃ ৪৬ শ্লোক)। সন্তান জন্মদানে দেবরের ভুমিকাসহ সামাজিক বিধানকে অস্বীকার করে সকল ন্যায়ধর্মের কবর রচিত হয়েছে এসব আচারী ধর্মে। যার জন্য নির্যাতীতা নারীদের বলতে হয়, এ ধর্মে আচার আছে ভাই বিচার নেই। এভাবে উচ্চবর্ণ হিন্দুরা নিজেদের সুবিধামতনই শোষণ করার শাস্ত্র সাজিয়েছে, দেব দেবীরা শত অপকর্ম করলেও দেবতা থাকতে পারে। নারীকে মরার জন্যই সৃষ্টি করা হয়েছে, দরকারে সহমরণে যেতে হবে। কিন্তু ইসলামে এসব কিছু নেই। তারপরও কৌশলীরা সব অপবাদই সিলেবাসধারী মুসলিমদের উপর ঠেসে দিয়েছে। ইন্টারনেটে হিন্দুদের গালাগালিতে যে কেউ বিচলিত হতে পারেন। যাদের বড়াই করার কিছুই নেই তারা এমনভাবে মুসলিমদের পিছে লেগেছে জোকের মতই, এটি কি ন্যায়ধর্মের নমুনা? এসব খুটিনাটি হিসাবও মূল বিশ^কর্তার দৃষ্টি এড়াবার নয়।

আজকের দিনে যত মত তত পথ ছলনার প্রতারণার উৎস কথা। এর কারণ শত অনাচার দিয়ে সুপথ রচনা করা যায় না বরং সঠিক ন্যায় নীতির পথেই একমাত্র সুপথ রচিত হতে পারে। তাই সব ভুল নষ্ট পথেও মুক্তি মেলে কথাটি বড় ছলনার কথা। গোজামেলে মিথ্যাকে সামাল দিতেই এসব কথা বলা হয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশী খেদাও আন্দোলনে নেমেছে ভারত, ওদিকে হাজার হাজার ভারতীয়কে ইত্যবসরে ঠেলে দিয়েছে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে যারা এদেশে চাকুরী করছে। কোন কৌশলে এ অসম্ভব সম্ভব হয়? বিগত শতক থেকেই শুনেছি পাঁচ লাখ এখন দেখছি উইকিপিডিয়াতে ২০০৯ এ পাঁচ লাখ সরকারী হিসাব আর বাকীটা তথৈবচ। আজ চলছে ২০১৯ একজন সচেতন বুঝতে পারেন, এর ব্যাপ্তি কতদূর গড়াতে পারে। মধ্যরাতে অপকর্মী চোর কখনো কখনো চেঁচিয়ে উঠে আর চোর চোর বলে চিল্লায়, যখন ধরা পড়ার সম্ভাবনা কাছে আসে ঠিক তখন। চোর এটি করে আত্মরক্ষার্থে যাতে কেউ তাকে চোর ঠাওরাতে না পারে। বিগত শতকে শুনেছিএ ধারার কিছু পুশইন পুশবেক নাটক সময়ে সময়ে হতো, যা নিয়েও ময়দান গরম হয়েছে। পুশইনএর উপর কবিতাও হয়েছে। বৃটিশের হাতে ভারত পাকিস্তান বন্টনের সময় থেকেই ভারতীয় বৃটিশ তোষণবাজরা পাকিস্তানের সাথে অনৈতিক বণ্টন যে করেছেন সেটি ঐতিহাসিক সত্য। তাদের পাওনা না বুঝিয়েই খেলা পন্ড করে বোকাদের পোকায় খাওয়া পাকিস্তান দেয়াটা কি মিথ্যা গুজব নাকি বৃটিশ ভারতের আভ্যন্তরিন বিষয় ছিল? ইতিহাস তলানীতে পড়ে কিন্তু ফসিল আকারে থেকে যায়, মরে না। তাই সময় সময় কথা বলে। এর উপর সচেতনরা অনেকেই জানেন। আর এসব কারণেই স্বাধীনতার পর থেকে দেশটিকে কবজা করতে ভারত বেশী সচেষ্ট থাকে। তা না হলে এমনও হতে পারে সদ্য মুক্ত দেশ তার অতীতের দেনা পাওনার হিসাব তুলে ধরতে পারে, প্রতারকদের কাছে সে হিসাবের ফয়সালা চাইতে পারে, সে ভয় তাদের ছিল আছে এবং থাকাটাই স্বাভাবিক। এ জন্যই কি ভারত চোর চোর বলে সারাক্ষণ চিল্লায়? মুসলিম ধর মার কাট এর নাম হচ্ছে অখন্ড ভারত তৈরীর প্রচেষ্ঠা। তারা মনে করে তাহলে মুসলিমরা চুপসে থাকবে আর হিসেব নিকেশ চাইবে না।

ইত্যবসরে ইসলাম সারা বিশে^ ছড়িয়ে গেছে আর মূর্তিপূজা ঐ গৃহকোণে আবদ্ধ হয়ে আছে। ঐ গৃহকোণও আজ ভঙ্গুর অবস্থায় কারণ মিথ্যা দিয়ে কি শাস্ত্রধর্ম টিকানো যায়? জাকির নায়েক কি কারণে আজ আসামী, কোন দোষ তারা প্রমাণ করতে পারে নি, তার মূল অপরাধ তিনি মুসলিম, কাশ্মীরীদের মত আসামী একজন। অপরাধীর সামনে সত্য বলা ও সত্য প্রচার করাও অপরাধ। নীতির ধর্ম ইসলাম এগিয়ে যাওয়ার মূল ধর মার কাটো নয়, বরং তার মানবিকতা, উদারতা মহানুভবতা, মধ্যপ্রচ্যের গন্ডি পেরিয়ে প্রবল বেগে স্ফুলিংগের মত গোটা বিশে^ ছড়িয়ে গেছে। সমস্ত বিশে^ মুসলিমদের মত এত সহনশীল জাতি আর দুটি নেই। প্রকৃত ইতিহাস বিশ্লেষণ ছাড়া এ সত্য লুক্কায়িত, ষড়যন্ত্রীরা দৃষ্টির আড়াল করে রেখেছে। ইহুদী খৃষ্টান হিন্দুদের মাঝেও অনেক সত্যবাদী আছেন যারা এ সত্যকে অকপটে স্বীকার করে গেছেন। যদিও এরা সংখ্যায় অল্প তারপরও ঐ অল্প সংখ্যাও ইতিহাসের কথা হয়েছে। সহজে সৎ চিন্তার মানুষ জন্মায় কম। কালে ভদ্রে সুভাষ চন্দ্র বোসরা জন্মালেও এদের তাড়িয়ে দেয়া হয় ময়দান থেকে। মিথ্যা গুজবে তাদের মেরে ফেলা হয়। আমরা জানি একজন সৎ হাজার অসৎ থেকেও ওজনদার। ইসলাম বিরোধীরা এক হয় তাড়াতাড়ি কারণ এদের প্রতিপক্ষ এক সততার আদর্শে বিশ^াসী। বাকীদের কাছে যত মত তত পথ, বহু সুবিধাবাদীর কুপথও তাদের কাছে সুপথ।

যখন বুদ্ধের আবির্ভাব হয়, তখন ভারতবর্ষে চলছিল ঈশ^রের নামে চরম অধপতনের যুগ। ৩৩ কোটি দেবতার পাপে টলটলায়মন ভারত বর্ষের স্বরুপ দেখে বিস্মিত বুদ্ধ সমাজ সংস্কারের নিমিত্তেই গৃহত্যাগ করেন। তিনি সেদিন পাগল ছিলেন না, ছিলেন সত্যান্বেষী এক সাধক।
তিনি কোনদিনও নাস্তিক ছিলেন না, কিন্তু এ সত্যসাধক অসীমের সন্ধান লাভ করেন। বিভ্রান্তরা তাকে কখনো বলেছে নাস্তিক কখনো বলেছে ঈশ^র কখনো বলেছে অবতার। যুগে যুগে এরা এসেছেন মানুষকে সুপথ দেখাতে আলোর মশাল হাতে এরা সমাজ থেকে মিথ্যা পুতুল পূজা, প্রেত পূজা, দূর করতেই কাজ করে গেছেন। সমাজ তাদের নিয়ে যা ইচ্ছে তাই করেছে করছে। কখনো বলেছে তিনি প্রাণী হত্যা নিষেধ করেছেন। আমিষভোজি বুদ্ধ মাছ মাংস খেতেন। তার মৃত্যু হয় চুন্দের দেয়া বিষ মিশ্রিত মাংস খেয়ে (উদ্বোধন, জৈষ্ঠ ১৩৭৮)। পরবর্তীতে শাসক অশোক নিরামিষ খাবারের প্রচলন করেন। মুখে এটি বললেও কার্যক্ষেত্রে বর্তমানে বৌদ্ধরা এমন এক জাতি যারা সর্বভুক, সব খায়। এদের অখাদ্য পৃথিবীকে কিছু নেই। এভাবে কালে এরা অনুসারীরা এসব সাধকদের সবদিকে কবর রচনা করেছে। আজকে মিয়ানমারের বৌদ্ধরা যা করে চলেছে তা গৌতম বুদ্ধকে কয় হাজার বার কবর দিয়ে দিয়েছে। কোন কোন পাঠে জানা যায় বৌদ্ধ চোর ছিলেন, নাস্তিক ছিলেন। জওহরলাল নেহরুও তার ডিসকভারী অব ইন্ডিয়া গ্রন্থে বলেছেন ভারতে নিচু জাতের কিছু দলিতমার্কা বৌদ্ধ ছিল। এভাবে তারা কালে বুদ্ধকে একদিকে যেমনি অবতার বানায় আবার তার অনুসারীকে দলিত শ্রেণীর বলে প্রচার চালায়।

ভারত আর মায়ানমার বাংলাদেশ বিরোধী অবস্থানে একাট্টা হয়ে কাজ করছে। কাজেকর্মে উভয়ের এই ঠেলাঠেলির বানিজ্যে এক ইস্যুকে ভয়ঙ্কর মিল দেখে বুঝতে অসুবিধা হয় না যে, ভারত মায়ানমার বন্ধু, বাংলাদেশের বন্ধু তারা নয়। রোহিঙ্গাদের দেখে ভারত উৎসাহী হয়েছে, ঐ খেলা ফের খেলতে চাচ্ছে বাংলাদেশে, উভয় ক্ষেত্রে ভোক্তভোগী ধরা হয়েছে মুসলিমদেরে। এটি আর লুক্কায়িত নেই যে মুসলিমদের বাদ দিতেই ভারতে মোদির সাম্প্রতিক সময়ের এই এনআরসি মঞ্চায়ন এবং ধরা খাওয়া। আবার এটিও তারা খোলাসা করেছে এনআরসিতে আটকে যাওয়া হিন্দুদেরে তারা সামাল দিবে। মোদি ও বিজেপি তাদের নিজেদের স্বমূর্তি খোলে ধরেছে, কিছুই ঢাকা নেই। একইভাবে রোহিঙ্গা ইস্যুতে মায়ানমারও খোলাসা। ঐ এক নীতিতেই হিন্দুদের প্রত্যাবাসন এগিয়ে নিতে তৎপর মিয়ানমার, খবর বিবিসির। একই সাথে তারা রোহিঙ্গা মুসলিমদের গ্রাম ধ্বংস করে গুড়িয়ে দিয়ে তৈরী করছে পুলিশ ব্যারাক ও সরকারী ভবন। বিবিসি এরকম চারটি স্থাপনা খুঁজে পেয়েছে, স্যাটেলাইট কৃত ছবি থেকে যেখানে আগে ছিল রোহিঙ্গা মুসলিম বসতি। যদিও সরকারী কর্মকর্তা তা স্বীকার করছে না। বিবিসিসহ কিছু সংবাদ মাধ্যমকে তারা আমন্ত্রণ জানালেও ছবি তোলা, সাক্ষাৎকার নেয়া, নিজস্ব গাড়ী ব্যবহার ও প্রবেশের ক্ষেত্রে কড়াকড়ি লক্ষ্যনীয়। অষ্ট্রেলিয়ান স্ট্র্যাটেজিক পলিসি ইন্সটিটিউট জানায়, ২০১৭ সালে ক্ষতিগ্রস্ত রোহিঙ্গা গ্রামগুলির কমপক্ষে ৪০ ভাগ গ্রাম পুরোপুরি গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। ‘মিয়ার জিন’ নামে এক রোহিঙ্গা গ্রাম বুলডোজার দিয়ে গুড়িয়ে দেয়া হয়। ‘ইন দিন’ নামে আর একটি গ্রামে ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে ১০ জন বন্দী মুসলিম পুরুষকে হত্যা করা হয়। অল্প বিস্তর অপরাধ যা তারা স্বীকার করে ‘ইন দিন’ তার একটি। এ গ্রামের তিন চতুর্থাংশই মুসলিম আর বাকীরা বৌদ্ধ। এখন সেখানে মুসলিমের কোন চিহ্ন নেই। অতীতে যেখানে মুসলিমরা থাকতো সেখানে তৈরী হয়েছে কাটাতারের বেড়া আর বিশাল সীমান্ত রক্ষী পুলিশের ব্যারাক। মিয়ানমার সরকারের প্রশ্নবিদ্ধ আচরণ, রোহিঙ্গা মুসলিমদের চলাফেরাতে স্বাধীনতা না দেয়া, সর্বোপরি নাগরিকত্ব অস্বীকারের মত বিষয়কে অমীমাংসিত রেখে রোহিঙ্গারা ফিরতে পারে না। ওখানে বাস্তুচ্যুত এক তরুণের ভাষ্যে জানা যায় বিনা অনুমতিতে কোন বিদেশীর সাথে কথা বলার অধিকার তাদের নেই। ২০১২ সাল থেকে মোট সাত বছর থেকে ক্যাম্পে আটকে পড়া ঐ তরুণের লেখাপড়ার কোন সুযোগ নেই। অনুমতি ব্যতীত ক্যাম্পের বাইরে যাবার অনুমতিও তার নেই। সে নিষেধ করে বাংলাদেশে থাকা রোহিঙ্গারা এ অবস্থায় কখনোই যেন না ফেরে, প্রকৃত সমস্যার সামধান না করে ফিরলে কোনভাবেই তাদের দুর্ভোগ কমার সুযোগ নেই।

হিন্দু শাস্ত্রের নীতি হচ্ছে সুরা খাও, পিও আর নারী নিয়ে আনন্দ কর। ইন্দ্রের ভালোবাসার কাজই ছিল দাসদের হত্যা করা। এসব ঋকবেদ শাস্ত্রের কথা। অনেক লেখাতে পাওয়া যায় মনুস্মৃতি লেখা হয় ছয়শত খৃষ্টাব্দের কাছাকাছি সময়ে তার আগে নয়। তাহলে এটি স্পষ্ট করছে ইসলামের শেষ নবীর আগমনের সময়ই এর সংযোজন। বিবেকানন্দ, গান্ধী, রামকৃষ্ণ এরা বুঝতে পেরেছিলেন সহনশীলতা ছাড়া এ বিকৃত নীতিহীন ধর্মকে রক্ষার উপায় নেই, তাই তারা অন্য বর্ণহিন্দুদের থেকে অনেকটাই উদার থাকার চেষ্টা করে গেছেন। রামকৃষ্ণ পরমহংসদেব ইসলাম ও খৃষ্টান ধর্মের অনুকরণে কিছুটা উদারতার দিকে গিয়ে ‘যত মত তত পথ’ বাতলে গেছেন। মূলত হিন্দু শাস্ত্রগুলি লুকিয়ে রাখা, এটি কোন শাস্ত্রের ধর্ম নয়, এটি হচ্ছে একরাশ আচারের ধর্ম। সেখানে নীতি থাকতে পারে অনীতিও সমান তালে সমাদৃত। একে অবশ্যই শুদ্ধ করতে হবে যত মত তত পথ নয় বরং হবে যত মত এক পথ। এক কর্তার এক পথ , ন্যায়ের পথ সততার পথ। একমাত্র এ সুপথে হয়তো ভারতবাসী মুক্তির স্বাদ পেতে পারে। বিবেকসম্পন্নরা এটি ভেবে দেখতে পারেন।
লেখার তারিখ = সেপ্টেম্বরের ১৩ তারিখ।

বি দ্র: লেখাটি ২০ সেপ্টেম্বর তারিখে ২০১৯ নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক রানার নিউজ সংখ্যায় ছাপা হয়েছে।

Tag Cloud

%d bloggers like this: