Articles published in this site are copyright protected.

নাজমা মোস্তফা

বাংলাদেশ এমন একটি সময় পার করছে এবং বড় সময় থেকে গোটা জাতিকে বিভক্ত করে রাখা হয়েছে। সেটি দেশপ্রেমিক জনতারা বুঝতে পারলে মঙ্গল হতো। স্বাধীন দেশে বাস করেও মানুষ আজো কেন পরাধীনতার আতঙ্কে। জাতিকে যারা ভাগ করেছে আড়াল থেকে, সেটি বুঝতে জাতির এত সময় লাগার কথা ছিল না। এর ফাঁকে অন্যেরা বাংলাদেশীদের মাথাতে কাঠাল ভেঙ্গে খাচ্ছে। পূর্ব পাকিস্তানের অধিকারে এগিয়ে আসা ভারত ১৯৭১ সালে খুবই উৎসাহী ছিল কিন্তু ১৯৪৭ থেকে নির্যাতনের যাতাকলে পিষ্ট কাশ্মীরীদের প্রশ্নে তারা উল্টো। সেই ৭১ সালেই ভারতের নীতি থাকলে কাশ্মীরের প্রতি মানবিক আচরণ করতো। কেন করছে না, সেটি সময়ের বড় প্রশ্ন। কাশ্মীর বিচ্ছেদ্য অংশ না অবিচ্ছেদ্য অংশ তা নিয়ে ধান্ধাবাজি সময় পার করছে। এটি নিশ্চয় আজ স্পষ্ট যে পাকিস্তানকে ভেঙ্গে দু টুকরো করার স্বপ্নেই ভারত বিভোর ছিল সেদিন। সেদিন এ কথাটি মনে ছিল না যে ওটিও ছিল পাকিস্তানের আভ্যন্তরিন বিষয়, কিন্তু ভারত নাক গলায়। আগরতলা মামলা তার উদাহরণ হয়ে আছে। আজ স্বাধীনতার ৬ যুগ পর কেন কাশ্মীরী মুসলিমদের সাথে অমানবিক আচরণের ষ্টিম রোলার চালিয়ে যাচ্ছে ভারত। এতদিন দেয়া নগন্যতম অধিকারও কেন কেড়ে নিচ্ছে। শুরু থেকেই সৈন্য ছাড়া কাশ্মীরকে সামলাতে অপারগ ভারত। কেন জবরদস্তি করে লাখ লাখ সৈন্য বহাল রেখে ও বৃদ্ধি করে মানুষকে বন্দুকের নলের সামনে দাবড়ানি দিতে হয় ভারতকে। এসব প্রমাণ করে ভারতের আচরণ ৬ যুগ থেকেই প্রশ্নবিদ্ধ। ভারত এমন একটি দেশ, নিচুবর্ণের হিন্দুদের ও মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠদের সাথে অমানবিক আচরণ করতে কখনোই বিচলিত হয়নি। সবদিনই তারা তাদের বিবেককে বন্ধক রেখে পরম নিশ্চিন্তে অপকর্মে তালিয়া বাজিয়ে গেছে। সময়ে সময়ে সরকারও সহযোগিতা দিয়ে গেছে।

১৯৩০ সালে একদল মুচি বা চামার গোষ্ঠীর ধৃষ্ঠতা হয়েছিল রাজপুত্রের মত পোষাক পরিয়ে তাদের এক বরকে ঘোড়ার পিঠে সওয়ার করানোর। আজ থেকে প্রায় ১০০ বছর আগে ঐ অপরাধে বর্ণ হিন্দুরা নির্যাতীতদের প্রতি তাদের এগারোটি নির্দেশমূলক আদেশ জারি করল।

(১) হাঁটুর নীচ পর্যন্ত কাপড় পরা যাবেনা।
(২) নারী পুরুষের স্বর্ণালঙ্কার পরিধান করা যাবেনা।
(৩) মেয়েরা জল বহন করবে শুধু মাটির পাত্রে, তামা বা পিতলের পাত্রে নয়।
(৪) ছেলেমেয়েরা পড়াশুনা করবেনা বা নিজেদেরকে শিক্ষিত করে তুলবেনা।
(৫) ছেলেমেয়েরা শুধু মিরাশদারদের গরু চরাবে।
(৬) পুরুষরা ও মেয়েরা মিরাশদারদের গোলাম হিসাবে কাজ করবে।
(৭) মিরাশদারদের কাছ থেকে জমি ইজারা নিয়ে চাষ করতে পারবেনা।
(৮) মিরাশদারদের কাছে নিজের জমি বিক্রি করবে খুব সস্তা দামে, অন্যথায় জলসেচের জন্য তাদেরকে কোন জল দেয়া হবেনা।
(৯) সকাল সাতটা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত পুরুষরা এবং মেয়েরা উপবাসী প্রায় হারে মিরাশদারদের কুলির কাজ করতে থাকবে।
(১০) অনুষ্ঠানাদিতে ভারতীয় সঙ্গিত ব্যবহার করা চলবে না।
(১১) বিবাহ মিছিলে ঘোড়া ব্যবহার করা যাবেনা, শুধু তাদের ঘরের দরজা পাল্কী হিসাবে ব্যবহার করতে পারবে। এবং কোন অভিপ্রায়েই কোন যানবাহনের ব্যবহার করতে পারবেনা (“ভারতের নির্যাতিত শ্রেণী”, ডঃ বি, আ, আম্বেদকর এম.এ, পি.এইচ.ডি, এস.সি, বার.এট.ল)

উপরের আদেশগুলি দেখলে বোঝা যায় বর্ণহিন্দু কি জিনিস। ভারত বিভাগে এই বর্ণহিন্দুদের শক্ত হাত সচল ছিল বলেই মানুষের দুর্ভোগ আজ অবদি কমছে না। এভাবে এরা মানুষের মানবিক আচরণের বাইরে থেকে কাজ করে গেছে। যেখানে এ ধারার আচরণ করে তারা স্বজাতির সাথে। সেখানে ভিনধর্মী মুসলিমদের সাথে তারা কি আচরণ করতে পারে সেটি খুব সহজেই অনুমেয় । ৭৩ সাল অবদি কাশ্মীরীরা এসব ক্ষতচিহ্ন নিয়ে সময় পার করছে। সম্ভবত ভারতের বর্তমান শাসক মোদি হিন্দু উচ্চবর্ণের নন। কিন্তু তার শক্তির তলানীতে হিন্দুত্ববাদীরা ঐ চর্চাকে মোটাতাজা করতে নির্যাতনে অব্যাহত আছে। ২০০২ সালে গুজরাটে ২০০০এরও বেশী মুসলিম নিধনের কারিগর এই মোদিকে ভারতীয়রা গদিতে বসিয়েছে। এতেও ভারতীয় মানসিকতা স্পষ্ট হয় এই একবিংশ শতকেও। গরু নিয়েই তারা মুখর ও অবিচল, মানুষের দিকে তাদের নজর কম।

বিগত শতকের শেষ দিকে বেড়াতে গিয়েছিলাম ভারতের শিলচরে আমার মামার কাছে। মামী বললেন এখানে এক মেয়ে তোমার নাম করাতে খুব উৎফুল্ল হয়ে বললো সে তোমাকে চিনেছে। একদিন তোমাকে নিয়ে যাব তাদের বাসাতে। মেয়েটির নাম ইভা। আমি অবাক বিস্ময়ে বলি আমি চিনি একজন ইভাকে, কিন্তু সে কি আমার সেই চেনা ইভা, তাতো জানি না। একদিন গেলাম গিয়ে অবাক হয়ে একে অপরকে জড়িয়ে ধরি। সত্যিই এ আমার পরিচিত সেই ইভা। ওর সহপাঠি শক্তি ভক্তিরা সবাই ধারেকাছে আছে, ভালো চাকরি করছে। কিন্তু দেখতে শুনতে লেখাপড়াতে ভালো হলেও যোগ্যতার কমতি না হলেও সে মুসলিম এ অপরাধে তার কোন সুগতি হয়নি অধগতি ছাড়া। তার কোন পথ নেই কোন বাঁচার ব্যবস্থা নেই। দিল্লীতে থাকা স্বজনদেরও একই অবস্থা। সেখানে মুসলিম হয়ে কাজ করা বড় কষ্টের তারা সারাক্ষণ সন্দেহ করে আর নানান অনাচার করে যাতে স্বচ্ছন্দে চাকরি করা যায় না। প্রধানত সেদেশে মুসলিমদের জন্য চাকরিই নেই, আর কেউ যোগ্যতা বলে পেলেও ধরে রাখতে পারে না। আমার ছোটবোন ইভা সেদিন তার মনের দুয়ার খোলে অনেক বেদনাঘন বিষয়ের বর্ণনা করে যায়। কথাচ্ছলে সে বলে তার পূর্বপুরুষ ভারতের বাসিন্দা। আমার পূর্বপুরুষও ভারতের বাসিন্দা হওয়াতে আমি বেড়াতে গিয়েছি। সে সুবাদে তাদের জায়গাজমি সবই ওখানে স্বাধীনতা পূর্ব থেকেই যা আজও আছে। চমৎকার একটি মেয়ে ইভার জীবন এখন আজ এই মুহূর্তে কি পর্যায়ে আছে আমি জানি না। তবে সময়ে সময়ে তার কথা মনে পড়ে যখন মুসলিমদের দুর্দশার কথা পড়ি জানি তখন তার কথাও মনে পড়ে, এক নিরব সাক্ষী পথ চলতে এরকম অনেক নির্যাতীতা মুসলিম মেয়ের কপট কষ্ট শুনেছি জেনেছি।

ডঃ আম্বেদকর পন্ডিত নেহরুর ক্যাবিনেট আইনমন্ত্রী ছিলেন। তাকে ভারতীয় শাসনতন্ত্রের রচয়িতা বলা হয়। তিনি অচ্ছুৎ সম্প্রদায়ের লোক। দক্ষিণ ভারতের আওরঙ্গাবাদ শহরের অচ্ছুৎ সম্প্রদায় মারহাটওয়ারা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন করে ডঃ আম্বেদকর বিশ্ববিদ্যালয় রাখার পরিকল্পনা করায় মহারাষ্ট্রে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা শুরু হয়ে যায়। এই প্রয়াত ডঃ কর শৈশবে একবার তার বড়ভাইএর সাথে ট্রেনযোগে পাঞ্জাবের গুরগাঁও মেলায় যান। তাদের পিতা তখন সেখানে অবস্থান করছিলেন। কোন টাঙ্গাওয়ালা তাদেরকে রেলষ্টেশন থেকে শহরে পৌছতে রাজী হয়নি। কারণ তারা ছিল ছোটজাত। হাইস্কুলে ব্ল্যাকবোর্ডের কাছে যাবার তার অনুমতি ছিলনা। কারণ উচ্চবর্ণ হিন্দুর ছেলেরা ঐ ব্ল্যাকবোর্ডের কাছে তাদের টিফিন বক্স রাখতো। কলেজে সবার সাথে ক্যান্টিনে গিয়ে চা খেতে পারতেন না তিনি। কারণ ক্যান্টিন পরিচালনায় ছিলেন একজন ব্রাহ্মণ। উচ্চশিক্ষা সমাপান্তে বারোদা স্টেইটে গেলে সেখানে কোন হোটেলে তাকে কামরা দেয়া হয় না। খাতায় নাম লিখতে গিয়েই বাধলো বিপত্তি। খাতা টেনে নেয়া হল। বারোদায় চাকরি পেলেন কিন্তু তারই চাপরাশি তার সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করল। বাড়ীওয়ালা তার পরিচয় জানতে পেরেই তার বাড়ী খালি করার নোটিশ দেয়। কলেজ সহকর্মী লেকচারার তার সোরাহী থেকে তাকে পানি দিতে অস্বীকার করে। সারাজীবন এই অমানবিক জীবন কাটানোর পর এই তিক্ততা থেকে মুক্তির অন্বেষায় তিনি বৌদ্ধধর্ম গ্রহণ করেন। সে সাথে তিনি অচ্ছুৎদেরেও উপদেশ দিয়ে যান যে, “তোমরা বৌদ্ধধর্ম গ্রহণ করো নয়তো হিন্দুরা তোমাদের খেয়ে ফেলবে”। সর্ব বিষয়ে সুপন্ডিত এ ব্যক্তিটি জাতিতে নিচুবর্ণের সাহার শ্রেণীভুক্ত হওয়ায় বর্ণ হিন্দুদের দ্বারা যেভাবে লাঞ্ছিত হয়েছিলেন সে লাঞ্ছণা থেকে বাঁচার জন্য তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করতে চেয়েছিলেন। পরে গান্ধির অনুরোধে তিন লাখ অনুসারীসহ বৌদ্ধধর্ম গ্রহণ করেন। ডঃ বি আর আম্বেদকর ক্ষুব্ধ চিত্তে তার “এ্যানিহিলেশন অব কাষ্ট” বইতে লিখেছেন, “যদি তুমি জাত ব্যবস্থাকে ভাংতে চাও, তবে তোমাকে বেদ এবং শাস্ত্রগুলিকে – যা কোন যুক্তিকে স্বীকার করেনা, যা নৈতিকতাকে অস্বীকার করে ডিনামাইট দিয়ে উড়িয়ে দিতে হবে। তোমাকে অবশ্যই ধ্বংস করতে হবে স্মৃতি অনুসারী ধর্মকে”। অনেক তথ্য উপাত্ত বলে গান্ধী মুসলিম ঘেষা ছিলেন কিন্তু এখানে এটি স্পষ্ট তিনি আম্বেদকরের খুঁজে পাওয়া ইসলাম থেকে তাকে বৌদ্ধ ধর্মের দিকে ঘুরিয়ে দেন। যে বৌদ্ধরা আজকের দুনিয়ায় কলঙ্কিত অধ্যায় রচনা করছে, যদিও গৌতম বৌদ্ধ এমন ছিলেন না।

ডঃ আম্বেদকর ও তার ভাইকে দ্বিতীয় ভাষা হিসাবে সংস্কৃত ভাষাটি শিখতে দেয়া হয়নি। ব্রাহ্মণদের ধারণা ছিল যে, দেবভাষা শিখে ফেললে হয়তো অস্পৃশ্য শুদ্রেরা নিষিদ্ধ গ্রন্থ বেদ পাঠ করে তা অপবিত্র করে ফেলতে পারে। একইভাবে দেয়া হয়নি ডঃ শহীদুল্লাহকে বিশ্ববিদ্যালয়ে। বিস্ময়ের ব্যাপার হল, এরাই আবার বিদেশী ও বিধর্মী মনিষীদের বেদ সংক্রান্ত আলোচনা পাঠে অপরিসীম উৎফুল্ল হয়ে উঠতো। অথচ শুদ্রদেরে বেদ পাঠের অধিকার থেকে নির্লজ্জভাবে বঞ্চিত করে রেখেছিল। বাধ্য হয়েই ডঃ আম্বেদকরকে দ্বিতীয়ভাষা হিসাবে ফার্সি পড়তে হয়। লক্ষ্যনীয়, ফার্সি পড়তে তাদের কোন বাধার সম্মুখিন হতে হয়নি। ৪ জুন ১৯১৩ সালে উচ্চ শিক্ষা লাভ করার জন্য তিনি নিউইয়র্ক যান। আমেরিকাতে প্রত্যেকটি মানুষই সমান মর্যাদার অধিকারী। তিনি সকলের সঙ্গে একত্রে চলছেন, একই টেবিলে বসেছেন। এ যেন তার কাছে স্বর্গ লোকের ঘটনা। তখন তিনি বলেছিলেন, “আমি অস্পৃশ্য হয়ে জন্মেছি কিন্তু আমি অস্পৃশ্য হয়ে মরবোনা”। এই একবিংশ শতকেও ভারত কেন আজো ঘুমন্ত বিবেকের দাসত্ব করছে, আর কতকাল করবে?

মোদি ভারতে চরম মুসলিম জাতিবিধ্বংস নীতি শুধু করেছেন এ শতাব্দীর শুরু থেকে। এর দেড়যুগ পরও তিনি একবিন্দুও সরে আসেন নাই। গুজরাট অপকর্মের পর এই মোদিকে আমেরিকা নিষিদ্ধ ঘোষনা করেছিল, সে গ্লানির কথা দুনিয়ার মানুষ ভুলে যায়নি। ১৯৪৭ থেকে ২০১৯ গোটা ভারতে হাজার হাজার সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার নামে মুসলিম নিধনের যে মহামেলা সময় সময় তারা চালাচ্ছেন, আজকের সবকটি অপকর্ম ঐ আগের ধারাবাহিকতার অংশ। আইয়ামে জাহেলিয়াত নামে পরিচিত আরবের কুরাইশরা এটি ষষ্ট শতাব্দীতে জোরে সোরে চালু করেছিল। হিন্দু নামে কোন ধর্ম নেই, সিন্ধু নদের নাম অনুসারে ভুলভাবে ধর্মের পরিচয় দেয়। তারা বলে পৃথিবীর সবচেয়ে পুরানো ধর্মের নাম সনাতন ধর্ম। ইসলাম চৌদ্দশত বছর আগে এসেছে, কথাটি পুরোপুরি সত্য নয়। সময়টি শুরু নয় বরং শেষ, সর্বশেষ ইসলাম এসেছে ঐসময় আর শুরুটা সেই আদমের সময় থেকে। নবী আদম হচ্ছেন প্রথম প্রতিষ্ঠিত নবী। এর পরে কুরআনে বর্ণিত ২৫জন নবীর প্রমাণ মেলে। ইতিহাস ভূগোলে এরও প্রমাণ পাওয়া যায় এই আরবীয় বণিকেরা কালের ধারাতে সারা বিশে^ এমনকি ভারতেও ছড়িয়ে পড়ে। ইসলামের সুখবর প্রায় নবী মোহাম্মদের সমসাময়িক সময়েই ভারতের উপকন্ঠে পৌছায়। কিন্তু আরব বণিকদের মারফতে ছড়িয়ে যাওয়া কুরাইশদের ঐ মূর্তিপূজা ভারতেও ছড়িয়ে পড়ে। গবেষনায় প্রাপ্ত নবী নূহের সময়কার অভিশপ্ত জাতির চালচিত্র ভারতীয়রা আজো ধারণ করে আছে। নূহের মহাপ্লাবনকে তারা নাম দিয়েছে জ¦ালা প্রলয়াম। আমরা জানি মুসার অবর্তমানে তার বিভ্রান্ত অনুসারীরা গরুর বাছুরের পূজা শুরু করে। “আর স্মরণ করো! আমরা মুসার সঙ্গে চল্লিশ রাত্রি নির্ধারিত করেছিলাম। তখন তোমরা বাছুরকে তার অনুপস্থিতিতে গ্রহণ করলে আর তোমরা হলে অন্যায়কারী (সুরা বাক্কারাহএর ৫১ আয়াত)।”এর প্রমাণ আজো কুরআনে ছড়িয়ে আছে। এভাবে মধ্য প্রাচ্যের মূর্তিপূজার দখলদার হয় ভারত, আর সনাতনের বড়াই করে সেই নবীদের অনুসারীদের উপর চড়াও হয়ে যুদ্ধ করছে একবিংশ শতক অবদি। এভাবে বিগত ষষ্ঠ শতকের কুরাইশদের আদলে আইয়ামে জাহেলিয়াতের মতই ইসলামের শিকড় বাকড় ধরে বাহবা কুড়াতে জগতের সব নিকৃষ্ট কাজ করে চলেছে তারা ধর্মের নামে। সে হিসাবে তারা কয়েক শতাব্দী পিছিয়ে পড়া ধর্মের দল। কয় শতক পূর্ব বর্বর ধর্ম নামের অধর্ম চালিয়ে সারা ময়দানে লঙ্কাকান্ড বাধিয়ে পুতুল পূজা বহাল রেখেছে। বিবেক সম্পন্ন মানুষ মাটির কাঠের ষ্টিলের পাথরের পুতুলের বদলে পশু গরুর বদলে বিবেকসম্পন্ন মানুষকে সম্মান করতে শিখুক, এটিই একবিংশ শতকের প্রত্যাশা হওয়া উচিত। আর এটি রপ্ত করতে না পারলে জাতি হবে বিবেকহারা কপট কদাকার ও কলঙ্কিত। মানুষের ময়দানে এক ও মানবিক হওয়াই সব কথার শেষ কথা।
৩১ আগষ্ট ২০১৯।
বি দ্র: লেখাটি নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত দি রানার নিউজ সাপ্তাহিকে ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে ছাপে।

Tag Cloud

%d bloggers like this: