Articles published in this site are copyright protected.

 

স্যাকুলার নাম নিয়ে হেফাজতির উপর যে অদভুত ব্যাখ্যা দেয়া হচ্ছে তার উপর পিনাকি ভট্টাচার্য্য বলে একজন ফেসবুকে স্টেটাস দিয়েছেন। যা এমন সংকটে জাতির চিন্তাকে প্রসারিত করবে। তারা একটি টার্ম ব্যবহার করে বলছেন পাঠ্যবইএ সম্প্রতি হেফাজতিকরণ করা হয়েছে। তাদের অভিযোগ ছিল হেফাজত হিন্দুদের বাদ দেয়ার দাবী তুলেছে। এবার পিনাকি ভট্টাচার্য্যরে বক্তব্য হচ্ছে তারা তাদের বই নিজেরাই সাজায় এবং বেফাক সেগুলি ছাপায়। কওমীর আলেমরাই এ কাজটি করেন। তিনি বেফাক থেকে কওমী মাদ্রাসার ক্লাস ফাইভ পর্যন্ত বাংলার তালিকা সংগ্রহ করেন এবং তাদের পাঠ্য সংযোজনের প্রশংসা করেন। প্রথম শ্রেণীতে রবীন্দ্রনাথের “ছুটি” দ্বিতীয় কবিতা কাজী নজরুলের “ভোর হলো” তৃতীয় কবিতা জসিম উদ্দিনের “মামার বাড়ী”। দ্বিতীয় শ্রেণীতে অনেক কবিতা তারা পড়ে এর মাঝে আছে মদনমোহন তর্কালংকারের “আমার পণ” রবীন্দ্রনাথের  “আমাদের ছোট নদী” রজনীকান্ত সেনের “স্বাধীনতার সুখ” নবকৃষ্ণ ভট্টাচার্যের “কাজের লোক” চতুর্থ শ্রেণীতে কালিদাস রায়ের “কাজলা দিদি”। পঞ্চম শ্রেণীতে সুনির্মল বসুর “সবার আমি ছাত্র” জগদীশ্চন্দ্র বসুর “গাছের জীবন কথা”, সত্যেন্দ্রনাথ দত্তের অনুদিত “উত্তম মধ্যম”। স্যাকুলার নাম নিয়ে যারা এসব দাবী করছেন তারা যে কিভাবে পাঠ্য বই নিয়ে রাজনীতি করছেন এটি অনেকটাই স্পষ্ট। দেখা যায় হেফাজতিদের নিজেদের সংযোজন সরকার ঘোষিত পাঠ্য সংকলকদের থেকে অনেক উন্নত রুচির ও বিবেচনার দাবীদার।

ইত্যবসরে এনসিটিবি হিন্দু ধর্মের বইয়ের ভুল সংশোধন করলেও ইসলাম ধর্মের বইএ এখনো ভুল বর্তমান। ভুলে ভরা পাঠ্য বই সংশোধন করার খবর প্রকাশিত হয়েছে ২৭ এপ্রিল ২০১৬। ভুলে ভরা ‘ইসলাম শিক্ষা’! ফাইয়াজ আহমেদ, বাংলা মেইল ২৪ ডটকম। দেখা যায় বাংলাদেশে শিক্ষকদের ভুল ধরিয়ে দিতে হচ্ছে সাধারণকে। এখনো দেখা যায় ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা বইয়ের ৫৮টি ভুল শুধরে নতুন করে করা হলো আরো ২৩টি বানানের ভুল। শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রশ্নপত্র ফাঁসের মহামেলার মাঝে গণহারে পাশের সবকিছুই বিতর্কীত জমা। শিক্ষকদের নির্দেশ দেয়া হয় গণহারে পাশ করিয়ে দেয়ার, এটি শিক্ষকদের থেকেই শুনেছি। নীতিহীন সব কিছুই জাতির জন্য ভয়ঙ্কর।

নাজমা মোস্তফা, ১৮ই মে ২০১৭।

Advertisements

Tag Cloud

%d bloggers like this: