Articles published in this site are copyright protected.

Awami Tandob( Logi Boiytha) 2006 Part 1

 

এখানে ২৫টি অকল্যাণের দাগ দেয়া পয়েন্ট সূত্রগুলি সবার চোখের সামনে এসেছে। সংক্ষেপে ২৫ হলেও প্রকৃত কপটতা বহুগুণ বেশী। শত হাজার ছুয়ে যাবে। ৯ লাশের জমা, সমৃদ্ধ ঘরের সন্তান, পুলিশের দৃষ্টিতে তুখোড় স্মার্ট।  ঘটনাটি বানোয়াট, ফাঁস করলেন সাংবাদিক মহিম মিজান ও প্রতক্ষ্যদর্শী  নীচের ভিডিওটি অনেক যুক্তি স্পষ্ট করছে। দুঃখিত, এসব স্পষ্ট দাগ মুছতে তারা প্রতিনিয়ত ব্যস্ত সময় পার করছে।

প্রায়ই লিংকগুলি মুছে দেয়া হচ্ছে। বাস্তবতা এখানেই নীচে।

 

গম আমদানির নামে বিদেশে জয়ের টাকা পাচার

,

andolon news দেশে জঙ্গিবাদের উত্থান ও বিকাশ জঙ্গি জননী শেখ হাসিনার শাসনামলে।,

(১)        অধিকাংশের গুলি লেগেছে পিছন থেকে। ফরেনসিক বিভাগের তদন্তকারী চিকিৎসক সহকারী অধ্যাপক সোহেল মাহমুদ বিডিনিউজ টোয়েনটিফোর ডটকমকে বলেছেন, প্রত্যেকের শরীরে ৬/৭টি গুলির চিহ্ন পাওয়া গেছে। মানুষ যখন পালায় তখনই পেছন থেকে গুলি করা হয়। এরা পালায় নাই, এরা ছিল ময়দানের সম্মুখ যুদ্ধা। বদ্ধ ঘরের ভেতর থেকে পালায় কেমনে? এসব আসল নাটক নয়; এসব নকল নাটক।

(২)       সোনাবন্ধুর ঘুম হারাম হয়েছে। সেই সুযোগে বাংলাদেশের সঙ্গে আরও নিরাপত্তায় সহযোগিতা করতে  চায় ভারত (জুলাই ২৬)।

(৩)       পুলিশই আসল জঙ্গি। ওরা ঐ অপকর্ম সাজাতে গিয়ে তাড়াহুড়াতে মূল নীল রংএর পর্দা সরাতে ভুলে যায়, দৈবের পরিহাস হয়ে একপাশে ঝুলে থেকে বন্ধুসহ সরকারের পুলিশের সব অপকর্ম উলংগ করে দেখায়। এরই নাম দৈব! একে দেখা যায় না, শুধু কলকাঠি নাড়ে।

(৪)       জঙ্গিরা যদি লুকানোই থাকে, তবে কেন প্রচার করবে? আইএসএর পর্দা টাঙ্গাবে! সরকারও বলছে এরা দেশীয় জঙ্গি, আইএস নয়। তারপরও সমন্বয়ের অভাবে এসব গোজামিল কর্ম ময়দানে ঠাঁই পায়।

(৫)       সবাইকে নাটকের রিহার্সেলের মতই এক রংএর ড্রেস পরিয়ে আনা হয়। মরার আগে জঙ্গিরা ঐ ড্রেস টেইলার্স থেকে আনে নাই। এটি সাজাতে জনগণের টেক্সের টাকা খরচ করে সরকার নাটকের মহড়া দিয়েছে। মাথায় আবার লাল রং আরবী ধামা বাঁধতেও ভুলে নাই। কারণ সরকারের উদ্দেশ্য ইসলাম ও মুসলিমকে কারারুদ্ধ করা।

(৬)      মৃত্যুর পর একই লাশ বার বার ছুরি বদল করে ওলট পালট করে কেমনে? ফেইসবুকে এসব ছবি অসংখ্য পাওয়া যাচ্ছে!

(৭)       ৪টি পিস্তল দিয়ে মুহুর্মুহু গুলি? এত গুলিবর্ষণ জঙ্গিরা ৪টি পিস্তল দিয়ে কিভাবে করল? বলেন সাংবাদিক গোলাম মোর্তজা, এ সাংবাদিক সরকারের পক্ষেই দালালীতে সব সময় সরব থাকেন। তবে আজ কেন জানি সত্যকে অস্বীকার করতে পারছেন না! তার জন্য তাকে ধন্যবাদ।

(৮)       বাংলাদেশের অদক্ষ বিশারদরা দেখেছেন আইএস কালো পাঞ্জাবী ও পাগড়ি প্রচার করেছিল। তাই ঐ অনুকরনীয় নাটক করতে গিয়ে এ ধরা খাওয়া। বস্তুত চোর ধরায় বাংলাদেশের জনতারা পুলিশ থেকেও বহুগুণ বেশী দক্ষ।

(৯)       নিহতরা সত্যিই জঙ্গি কিনা, সন্দেহ সারা জাতির। সন্দেহ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অবঃ) আ স ম হান্নান শাহ এরও (বাংলামেইল২৪ডটকম)। তিনি বলেন সরকারের পদত্যাগের বিকল্প নেই। তিনি বলেন আমি সেনাবাহিনীর লোক, এটি ভালো করেই জানি কারো নির্দেশ ব্যতীত এ রকম নির্দোষ মানুষ মারা যাচ্ছে না। আর হুকুমদাতার নাম আপনারাও জানেন আমিও জানি।

(১০)     এক সাংবাদিকের মুখে শুনেছি জাহাজ বিল্ডিংটি একদম আটসাট চিপার মাঝে সেখানে কিভাবে খোলা ময়দানে যুদ্ধের মহড়া হলো বুঝে আসে না? সাংবাদিকদের কোন প্রশ্ন করার সুযোগ রাখে নি বিতর্কীত পুলিশ ও বাহিনী প্রধানরা।

(১১)      জঙ্গিরা কখনোই ধরা খাচ্ছে না, শুধু ক্রসফায়ারে মরে লাশ হচ্ছে সরকারের সুবিধামতন, নির্দেশমতন। সরকারের যুদ্ধাপরাধী নাটকের পর চলছে মেগা সিরিজে জঙ্গি নাটক একের পর এক। জাতির জন্য হাস্য রসের কৌতুকের জোগান দিচ্ছে এ সরকার, শত মায়ের বুকি খালি করে। রেশমা নাটকের মতই এসব অতি অল্পেই খোলাসা হয়ে পড়ছে। সরকারকে সেখানে হেলিকপ্টারে চড়ে এসে গায়ের চাদর বন্টনের সুযোগও বাকী থাকে নাই।

(১২)     অতি তৎপর পুলিশ করিৎকর্মাদের যোগ্যতা বিশ^ জেনে যাবে তাই মিডিয়া বন্ধ রয়েছে।

(১৩)     ভোরে ৫টা ৫১ মিনিটে পুলিশের হামলা হয়, অর্ডারী জিম্মীরা নিশ্চয় ঝিমাচ্ছিল ঘুমাচ্ছিল, না হয় কাৎ হয়েই শুয়েছিল। কিন্তু এতকিছুর পরও জুতা পরা ছিল। মাথার পাগড়ি ড্রেস সব ঠিকঠাক ছিল। অভিনব নাটক আর কত?  সাধের প্রাণ লুটে পড়লো কিন্তু ছুরি থাকলো হাতে ধরা! জঙ্গিদের হাতও কি চুম্বকের তৈরী ছিল নাকি? শত হাত বা শত গজ দূরের পুলিশকে কিভাবে ছুরি দিয়ে হত্যা করা সম্ভব? এসব নাটকের অর্থ কি, জাতি জানতে চায়।

(১৪)     ভারতীয় অস্ত্র ও সহযোগিতা ছাড়া পুলিশের এত বিজয় নিশ্চয় সম্ভব হতো না? বদ্ধ ঘরে ছুরির লড়াই হলে কি হবে? চারপাশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল অসংখ্য গুলির খোসা! এগুলি নিশ্চয়ই প্রতারক পুলিশের খোসা, জঙ্গির নয়।

(১৫)     বাংলাদেশের পুলিশ বাহিনী আর কিছু না পারুক নামকরণ দিতে পারে। এবারের নাম ছিল অপারেশন স্টর্ম -২৬। মরার আগে এরা জঙ্গিরা পাইপ বেয়ে উঠে আর মরার জন্য চিৎকার করতে করতে আল্লাহু আকবর বলে জানান দেয়। ইসলামকে কাকতাড়–য়া বানাতে আল্লাহু আকবর, তলোয়ার, ইসলামী বইএর নামে জিহাদী বই, তূর্কী কালো পতাকাকে আসামীর লিস্টে রাখা হয়। মিজান নামের একজন সাংবাদিকের বক্তব্য শুনি,  তিনি খুব স্পষ্টভাবে যুক্তির মাধ্যমে এটি স্পষ্ট করেন যে কিভাবে  পুলিশের উর্ধতন কর্তৃপক্ষ বলতে পারেন এরা খুব শিক্ষিত ও স্মার্ট ছিল। যুদ্ধের ময়দানে লাশ চিহ্নিত হওয়ারও আগে তিনি কেমন করে ভবিষ্যত দ্রষ্টার মত এটি সনাক্ত করতে পারলেন? তার মানে তাদের হাতে পূর্বে ধরা খাওয়া স্মার্ট ছেলেরাই পরবর্তী নাটকের স্ক্রিপটে কাজে লেগেছে জঙ্গিতে ধরা খেয়েছে, নয় কি?

(১৬)    সমস্ত জাতি জানে সারা দেশে ৬৩ জেলাতে একদিনের জঙ্গি লিডার শায়খ আব্দুর রহমানও ছিল আওয়ামী ঘরানার মানুষ। মির্জা আজমের আপন দুলাভাই। এরা ভারত থেকে প্রশিক্ষিত ছিল। এবারও প্রায় প্রতিটি আসামীই ধরা খাচ্ছে আওয়ামী ছত্রচ্ছায়ায় আওয়ামী সমৃদ্ধ পরিবারের সন্তান হিসাবে। ঐ সময় বিএনপি সরকারই এদেরে ধরে। বর্তমানে নর্থ সাউথকে কোন কারণে জঙ্গির লিস্টে রাখা হয়েছে, সেটিও খুঁজলে পাওয়া যাবে। ডঃ ইউনুসের মত নর্থ সাউথও বিতর্কীত সরকারের চোখে ধরা খেয়েছে।

(১৭)     জানা যায় কল্যাণপুরের পাশের বাসাগুলোতে পুলিশ তালা লাগিয়ে দেয়। এসব ঘটনা সাজাচ্ছিল বেশ দিন থেকে যা শেখ হাসিনার জানা ছিল। তাই তিনি বারে বারে বলছিলেন আরো বড় ধরণের হামলা আসছে সামনে, আমি দেশের প্রধান, আমার  কাছে তথ্য আছে।

(১৮)     জাতি মাঝে মাঝে শুনে একজন ধরা খেয়েছে কিন্তু আর কোন নড়াচড়া পাওয়া যায় না, ঐ পর্যন্তই। এটিও নাটকের ভিন্ন চিত্র।

(১৯)     এদের ঢোল কোনদিন জাতি বাজাবে না,  তাই তারা নিজেরাই নিজেদের ঢোল পিটায় উদারচিত্তে সরকার ও পুলিশ। একসুরে বলে বেড়ায় অভিযানে সোয়াতের ভূমিকা অসাধারণ, এরা আমাদের জাতির গর্ব।

(২০)    স্মরণযোগ্য সেই জাহাজ বিল্ডিংএর মালিকও কিন্তু আওয়ামী লীগের নেতা। এতসব নাটকের মহড়ার পর এবার ঢাকার আমেরিকান রাষ্ট্রদূতকে বলা হচ্ছে, আসেন ঘটনাটি তদন্ত করুন।

(২১)     জাহাজ বিল্ডিংএর ছয়তলার সিড়ি খুব সরু, এবার পুলিশ মরে নাই, শুধু জঙ্গিই মরে। গ্যালোবারের সালাহউদ্দিন নাটকে হয়তো টাকা ভাগ বন্টনে শেয়ারে কারো ভাগে কম পড়েছিল, তাই তাকে জঙ্গির ক্রসফায়ারে মরতে হলো।

(২২)    বিস্ময়ের ব্যাপার হচ্ছে মরার পূর্বে নাকি এরা হুরপরি স্বপ্নে বিভোর ছিল। কিভাবে হাসিনা অর্ডারী নাটক প্রমাণ করতে হবে, সেটিও ছিল তাদের টার্গেটে লিস্টিবদ্ধ করা। তাও বাস্তব করতে হলো। শেষ বিচারের পরের নাটকের সাথেও পুলিশি মশকরা, সরকারী মশকরায় এত সব সিনক্রিয়েট নাটক!

(২৩)    সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অভিন্ন লড়াইএ বাংলাদেশের সাথে ভারতের আরও নিরাপত্তা সহযোগিতা চেয়েছেন দেশটির হাই কমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা। তিনি বলেন নতুন চ্যালেঞ্জগুলি বাড়তি সহযোগিতা ও সমন্বয়ের প্রয়োজনীয়তা তৈরী করেছে।

(২৪)    এসব আদ্যেপান্ত ঘটনা এটিও স্পষ্ট করছে কি কারণে এসব নাটক সংঘটিত হচ্ছে, স্বাধীন একটি দেশটি কবজা করতে কত শত মাকে এখনো আরো বহু লাশের অপেক্ষার সময় পার করতে হবে, কে জানে?

(২৫)    রিজার্ভ চুরির হোতারা সোনাবন্ধুর দেশসহ জয়বন্ধু রাকেশ আস্তানা ও আওয়ামী ৭ কর্মকর্তা জড়িত।  বড় দুই রাঘব বোয়ালও আছেন। লজ্জায় লাল হয়ে সরকার এসব প্রকাশে গড়িমসি করছে। আতিউরের লজ্জা পদত্যাগ নাটক ও প্রধানের কান্না এক সূত্রে গাথা। তদন্তকারী বিশেষজ্ঞরা প্রতিবেদন দাখিল করলেও লাল হওয়া সরকার এখনো নিরব ভূমিকায়, জাতিকে জঙ্গি বানাতে ও বিরোধী তারেক রিজভী জামায়াত ধড়পাকড়ে ব্যস্ত। ব্যংক রিজার্ভের তদন্ত রিপোর্ট ৩০ মে অর্থমন্ত্রীর কাছে জমা দেয়া হয়, তারপরও বহুগুণ উৎসাহে শক্তিমানরা জঙ্গী সাজাতে ব্যস্ত। এসব হচ্ছে দুর্গন্ধ ঢাকার ষড়যন্ত্রী ক্যারিক্যাচার, জঙ্গি নাটক, এরা তারাবিহ পড়ে না, জঙ্গিপনা করে। প্রধানের দুর্গন্ধ ঢাকতেই এসব ছলাকলা হচ্ছে বড় সময় থেকে এটি সংশ্লিষ্ট ময়দানের দর্শনার্থিদের ধারণা। মাহমুদুর রহমানের দুর্যোগ যায়নি,  জামিন পেয়েও তিনি মুক্তি পান না। কারণ প্রধানের ইজ্জত!  তার পুত্রের ঘুষের খবর প্রচার করে তৌফিক-ই এলাহির ঘুষের খবর প্রচার করেই মাহমুদুর রহমান  বেকায়দায় পড়েন। চোরের তারাবিহ পড়াতে কি কোন লাভ জমে? জাতি ফতোয়াটি জানতে চায় প্রধানের কাছে, যিনি অধর্ম করেন আবার সময়ে সময়ে ধর্ম বাণী বিলি করেন। ভাগ্যবান চতুর চোরের দশ দিন হয়, সাধুর কি একদিনও হবে না? আল্লাহ সাধুদের সুদিন আনুক, সেই প্রার্থনায়। দেশের বর্তমান প্রেক্ষিতে দেশটি কিভাবে যে ধ্বসের দিকে ধাবিত হচ্ছে তার কিছুটা আভাস পাবেন নীচের ভিডিওটিতে।

নাজমা মোস্তফা, ২৯  জুলাই ২০১৬।

আইভীর মাদ্রাসা বিরুধী বক্তব্যের দাঁতভাঙ্গা জবাব। বাদ পড়েনি মুন্নি সাহাও।

 

 

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

Tag Cloud

%d bloggers like this: