Articles published in this site are copyright protected.

(আন্ডারলাইন করা ইটালিক : কোন লেখার বা ভিডিও লিংক ) 

মুসলিম দেশে প্রশ্নবিদ্ধ ইসলাম বিতর্কীত সংকটাপন্ন: ইন্ডিয়া যেন বাংলাদেশকে পা থেকে মাথা অবদি গিলে গিলে অবস্থায় আছে বহুদিন থেকে। ২০১১ তে বাংলাদেশের অগ্রণী প্রাইভেট এয়ারলাইন জিএমজি চলে যায় ইনডিয়ার মালিকানার কবজায়। ঐ সময়ের (২৭.১২.১১, আমারদেশ, এ কাদের গণি চৌধুরীর রিপোর্টে) প্রকাশ নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি থেকে জিএমজির সব ফ্লাইটে “ইনশাল্লাহ” ও ভ্রমণের দোয়া “বিসমিল্লাহি মাজরেহা ওয়া মুরসাহা ইন্না রাব্বি লা গাফুরুর রাহিম” দোয়া পাঠ নিষিদ্ধ করা হয়। একচেটিয়াভাবে ইন্ডিয়ান কর্মকর্তা নিয়োগের পর আল্লাহর নামে এ যাত্রাকে নিষিদ্ধ করার ধৃষ্টতা দেখালো জিএমজি। বরাবরের মত পার্সেরা সাবেরা ফেরদৌসী ঘোষণা করেছিলেন “ইনশাল্লাহ, অল্প কিছুক্ষণের মধ্যে আমরা ঢাকা শাহজালাল (র:) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করবো।” এতে বিক্ষুব্ধ হয়ে ইন্ডিয়ার জেনারেল ম্যানেজার ১ডিসেম্বর ফেরদৌসীকে শোকজ করে, ক্ষমা চেয়ে নাকে খত দিয়ে নিষ্কৃতি পেতে হয় তাকে। পর্যায়ক্রমে ক্রমে ক্রমে বাংলাদেশের দক্ষরা বেকার ও বঞ্চিত জীবন যাপন করছেন, চাকরী বাগাচ্ছে ভারতীয়রা। অন্যদিকে দেশের বেসামাল অবস্থা সামাল দিতে সরকারী কর্মকর্তাকে দিগুণ বেতনে তুষ্ট করা হয়েছে। তারপরও প্রতিটি সেক্টরেই বেসামাল অবস্থা! জিএমজির সূত্রে জানা যায়, শীর্ষ ১৬ পদের ৯টি পদই ইনডিয়ানদের দখলে। বাকী দুটিতে আমেরিকান, একটিতে বৃটিশ, একটিতে শ্রীলঙ্কান একটিতে ফিলিপিনো এবং মাত্র দুটিতে বাংলাদেশী কর্মকর্তা রয়েছেন। জিএমজি এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ এভাবে নিজদেশে ক্ষতিগ্রস্ত।

প্রায়ই লিংকগুলি মুছে দেয়া হচ্ছে। বাস্তবতা এখানেই নীচে।

দেখুন কিভাবে ইন্ডিয়া বাংলাদেশের গার্মেন্টেস শিল্প ধ্বংস করে দিচ্ছে

শিক্ষার উপর খড়গ: ২০১০ সালের গোপন চুক্তির কিছুই কি জানতে পেরেছে বাংলাদেশের জনগণ ? অতীতে গোপন চুক্তির মদদদাতা সরকার আজকে  বিশ^ময় রমজানে নীতির বানী বিলি করছে,  চুক্তির বিষয়ে সরকার চোরের ভূমিকা নিয়েছে, কখনোই স্পষ্ট করেনি। চার পাঁচ বছর আগে দেশে গেলে আমার এক বোনজি আব্দার রাখে শিক্ষার মান যে কী পর্যায়ে পার করছে তার নেতিবাচক দিক সে বারে বারে স্পষ্ট করে দেখায়। সে  প্রাইমারী শিক্ষিকা, তাদের নির্দেশ দেয়া হয় বিদ্যা অর্জন না করলেও বাধা নেই, সবাইকে ভালো পাশ দেখাতে হবে। যে দেশের শিক্ষানীতি এটি হয়, এরা যে কত নষ্ট নীতির অনুসারী তা বলার  অপেক্ষা রাখে না। এর উপর অনেক গাল গল্পই শুনছি আজ, ময়দানের ফলাফল তাই জানান দিচ্ছে। অনেকে দেখা গেছে পরীক্ষা না দিয়েও জিপিএ ৫ পেয়ে পাশ করে গেছে এসব হচ্ছে উদাহরণের নমুনাবাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে মুসলিমদেরে ঝেটিয়ে বিদেয় করা হয়েছে। সেখানে অনুপ্রবেশ ঘটানো হচ্ছে ডজন ডজন হিন্দুকে যারা একসাথে শিক্ষা ও ধর্মের উপর খড়গ হয়ে অবদান রাখতে পারেদুটি যোগ্যতা প্রাধাণ্য পাচ্ছে, নামে মুসলিম হলেও তাকে নাস্তিক বা বাম ঘেষা হতে হবে নয়তো হিন্দু হতে হবে। এটি হচ্ছে একটি জাতি ধ্বংসের পরিকল্পিত সমাচার। পাশাপাশি হিন্দুরা মহা উৎসাহে আল্লাহ রসুলের উপর হামলে পড়ছে ভয়ঙ্করভাবে, এসব অপকর্মে শিক্ষকরাই আগুয়ান।

নানামূখী ষড়যন্ত্রের কবলে আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা, চাই মুসলমানদের সচেতনতা

 

সুচিন্তিত দৃষ্টিতে শিক্ষার  লিস্টটা দেখুন: (১) প্রাথমিক শিক্ষার ডিজি শ্যামল কান্তি ঘোষ। পাঠ্যবই ছাপানো হয় ভারত থেকে অনেক আগে থেকেই। (২) পাঠ্য পুস্তক বোর্ডেও এনসিটিবি সচিব বজ্র গোপাল ভৌমিক। (৩) কারিগরি শিক্ষার ডিজি (মহাপরিচালক) ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার বিশ^াস। (৪) সৃজনশীল পদ্ধতি মাধ্যমিক শাখার যুগ্ম পরিচালক রতন কুমার রায়। (৫) ঐ একই বিভাগের বিশেষজ্ঞ ড. উত্তম কুমার দাশ। (৬) ঢাকা বোর্ডের উপ কলেজ পরিদর্শক অদ্বৈত কুমার রায়। (৭) চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের সচিব ড. পীযুষ কান্তি দত্ত। (৮) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপপ্রধান তথ্য কর্মকর্তা সুবোধ চন্দ্র ঢালী। (৯) পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের প্রধান নারায়ন চন্দ্র পাল। (১০) মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক ঢাকা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক শ্রীকান্ত কুমার চন্দ্র। (১১) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব অজিত কুমার ঘোষ। (১২) ঐ বিভাগের সহকারী সচিব পতিত পাবন দেবনাথ। (১৩) অন্য সহকারী সচিব অসীম কুমার কর্মকার। (১৪) ঐ বিভাগের যুগ্ম প্রধান স্বপন কুমার ঘোষ। (১৫) ঐ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব শ্রী বনমালী ভৌমিক (১৬) ঐ বিভাগের অতিরিক্ত সচীব অরুণা বিশ^াস। (১৭) ঐ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব স্বপন কুমার সরকার। এরা হচ্ছে শিক্ষার প্রচারক প্রসারক আর ধর্ম সে দেশ থেকে মুছে দিতে সর্বোচ্চ শক্তি নিয়োগ করা হয়েছে পাঠ্যবই সংশোধনীর নামে। সেখানে চরিত্র গঠন মূলক নৈতিকতা নির্ভর সদাচরণের সব গল্প কবিতা প্রবন্ধ তুলে দিয়ে পূজা পার্বন, রামায়নের সংক্ষিপ্ত রুপ, পাঠাবলি কিভাবে দিতে হবে এসব অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। নাস্তিক হুমায়ুন আজাদের কুরআন বিরোধী কথামালায় সিলেবাস সাজানো হয়েছে। এর আগে প্রকাশিত ০৬ ফ্রেবুয়ারী ২০১৬ তারিখের “চাকুরীতে হিন্দু প্রলয়ামের” যে বিশাল লিস্ট এখানে আমার কলামে আছে তা নিঃসন্দেহ ভয়ঙ্কর।

পুলিশে চাকরী: Indian getting job In Bangladesh Police 

সম্প্রতি ইউটিউবে বিডিনিউজ ডট নেট বরাতে পুলিশে নিয়োগের বিতর্কীত খবর এসেছে এরকম সমমানের ভিন্ন খবর আগেও এসেছে। দেখা যায় ঢাকা ও ধামরাই উপজেলাতে শত শত মানুষকে চাকরী দেয়া হলেও সরজমিনে দেখা যায় সেখানের কোন বাসিন্দা ঐ চাকুরী পান নাই। যারা চাকরী পাচ্ছে এরা অপরিচিত মানুষ ভালো করে বাংলাও বলতে সক্ষম নয়। বাংলাদেশের ভেতরের মানুষের ভাষা মানুষ চিনে ও জানে কিন্তু বাইরের অনেক লোকের ভাষা বুঝতে অক্ষম হয়। এরা ঐ দলেরই মানুষ। কেরানীগঞ্জের চরকুন্দলীয়া গ্রাম থেকে ১৮৬ জনের মাঝে একজনকেও গ্রামে খুঁজে পাওয়া যায়নি। অপরদিকে ধামরাই গ্রামের রামদাই গ্রামে ৩৬ জনের মাঝে মাত্র একজনকে খুঁজে পাওয়া যায় আর বাকীদের কেউ চিনে নাই, বলতে পারে না।  গ্রামের কোটায়ও তারা কখনোই চাকরী না পেয়ে বেকারত্বে সময় পার করছে আর ভিন দেশীরা চাকরী বাগিয়ে নিচ্ছে এভাবে শক্তির তলানীতে। পাশের গ্রাম পান্নাখোলারও ঐ একই অবস্থা, চাকরী সং কটের গোজামেল সংবাদ। এ ধামাচাপা দেবার কারণেই বিগত সময়ে সরকার এসব চুক্তির কথা সুস্পষ্ট করে নাই। সম্প্রতি একটি খবরে দেখি বাংলাদেশের হিন্দুদের ভারতে নিরাপত্তা দেয়া হবে। এটি এভাবে ফলাও করে প্রচার করা হচ্ছে কিন্তু বাংলাদেশে যে চাকরী ট্রানজিট শিক্ষা ধর্ম সবদিকে শিকল পরিয়ে দেয়া হচ্ছে তার উপর ফলাও প্রচার নেই কোন দিকেই; না ভারতে না বাংলাদেশে। এখানে সরকার ভারতে চোরে চোরে মাসতুতো ভাইএর ভূমিকা পালন করছে। দেশটিকে এভাবে কুরে কুরে খুবলে খুবলে খাওয়া হচ্ছে। অর্থমন্ত্রী সংসদে ব্যাখ্যা দিচ্ছেন রিজার্ভ চুরি হয়েছে পুকুর চুরি নয়, সাগর চুরি। ওখানেও ভারতের হাত লক্ষ্য করা গেছে, ঐ নাম সবদিকেই ঘুরে ফিরে বারে বারে আসে। তাই নিঃসংকোচে বলা চলে বাংলাদেশের প্রধান শত্রু পাকিস্তান নয়, বরং জোর গলাতে বলা যায় হিন্দুস্থান। বিশ^ বিধাতার সুক্ষ্ম দৃষ্টি আকাশ পাতাল সর্বত্রই ছোঁয়, কিছুই তার অগোচর নয়। “নিঃসন্দেহ তোমার প্রভুর শাস্তি অবধারিত। এটির জন্য কোন প্রতিরোধকারী নেই; যেদিন আকাশ আন্দোলন করবে বিরাট আন্দোলনে” (সুরা তূর এর ৭/৮ আয়াত)।

প্রায়ই লিংকগুলি মুছে দেয়া হচ্ছে। বাস্তবতা এখানেই নীচে।

জনতার কথা ২৯ ০৮ ১৪(গণমাধ্যমের ওপর সরকারের কতটুকু নিয়ন্ত্রণ প্রয়োজন,মতামত)

এসব হচ্ছে ২০0৯ সাল পরবর্তী অপ্রকাশিত গোপন চুক্তির ফলাফল। হয়তো এসবও চুক্তিতে ছিল যে ভারতীয়কে এদেশে চাকুরীতে নিয়োগ দিতে হবে! ইদানিং একটি জাতি ধর্ম দেশকে বিপন্ন করে দিতে বিক্রি নয় বরং বিনামূল্যে নিলামে তুলে দিতে এটি ছিল ঐ মিথ্যার উপর দাঁড়ানো সরকারী চাল মাত্র। যেখানে সম্পূর্ণ অনৈতিকভাবে ভারত একে একে নির্বাচনসহ সকল অপকর্মে প্রশ্রয় দিয়ে যাচ্ছে আর সরকার দাপটের সাথে দেশবাসীকে ঘোলের জল গোগ্রাসে গেলাচ্ছে। যার জন্য আজ দেখা যায় ২৪ ঘন্টাতে ২৪ জন নয় তার অধিক মানুষকে লাশ হতে হচ্ছে। দেশবাসীর পক্ষ থেকে এমন এক ভয়ংকর হায়েনার কবল থেকে মুক্তি চাওয়াই হবে চলমান রমজানের একমাত্র বড় কামনা।

একটি প্রতিষ্ঠিত দেশকে পুনরায় স্থানে রুপান্তর করার প্রক্রিয়া চলমান: একদিন দেশটি ছিল পাকিস্তান তারপর সেটি হয় বাংলাদেশ এবার চেষ্টা চলছে ভিন্ন স্থানে রুপান্তরের প্রচেষ্ঠা সেটি হবে দেশ থেকে রাজ্যে। তাদের অনেক আস্ফালনে এর আগেও বারে বারে অঙ্গরাজ্যের খবর ছড়ানো হয় হুমকির মাধ্যমে। এক গোষ্ঠীর স্বপ্ন এটি হবে হিন্দুস্থানের অঙ্গরাজ্য। ঐ স্বপ্ন পুষে বেশ কবছর আগে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে তারা মূখ্যমন্ত্রী বলে সম্মোধন করার ধৃষ্টতা দেখিয়েছিল। বাংলাদেশের নারায়নগঞ্জের লাঙ্গলবন্দে ইচ্ছাকৃতভাবে সাজানো হয় পাদপৃষ্ট নাটক যাতে করে, পরে বড়মাপে ফায়দা ফসল তোলা যায়। সেখানে নাকি হবে আন্তর্জাতিক সনানকেন্দ্র! যার জন্য সেখানে উচ্ছেদ অভিযান চলছে বিগত সময় থেকে। এটি আর এক বহুমুখী চক্রান্ত দেশটির অস্তিমজ্জা নিয়ে। এবারের বাজেটে কেন ঐ স্থানে ২০০ কোটি বাজেট নির্ধারিত হয়েছে, সেটি মুসলিম দেশের ধর্মহীন সরকারের চাল মাত্র। বিশাল কুরআন শরিফ কেউ চটি বইএর মত পড়তে পারে না কভার পেজকে দৃশ্যত দেখিয়ে , এটি অসম্ভব কাজের একটি। একটি ছবিতে দেখা যায় উবায়দুল কাদের সেই অসম্ভব কাজটির উপর নাটক করছেন বিশাল মাপের মহাভারত নিয়ে। ভারত ও বিজেপিকে তুষ্ট করতে ওবায়দুল কাদেরের এই রামায়ন মহাভারত নাটকীয় প্রচারণা!

নাজমা মোস্তফা, ৭ জুন, ২০১৬ সাল।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

Tag Cloud

%d bloggers like this: