Articles published in this site are copyright protected.

shia_sunni-outlookafganistan.net

দিকে দিকে  শুনো রানৈ রানৈ বাজিছে সানৈ ,

ঢাল তলোয়ার গুলাগুলি সার — মারণাস্ত্র মার মার

আদর্শেরী আশায় ভেরী খন্ডে খন্ডে ভেঙ্গে চুরমার

শ্রেষ্ঠ বাণী ভাংছে জানি উঠছে হাহাকার।

গোটা বিশ্ব পরিবারে আমরা সবাই

মুসলিম যারা তারা সে পরিবারের বড় ভাই

আদম, ইব্রাহিম, নূহ, মুহাম্মদ, ঈসা মুসারা

সারি বাধা সব মিছিলে, একই দালানের দহলিজে।

ওরে হতভাগা মুসলে হায়ান,

ওটা বুঝি তোদের কমর্, সেরা প্রমাণ!

বিশ্বাসীর শিষ্য হয়ে শিয়া সুন্নী বিভেদ গড়ো

একে অন্যে কতল করো, তওবা করো আজ সবাই

শিয়া না মোরা সুন্নী না মোরা, মোরা যে মুসলমান!

পথের ভিখারী করেছে যারা তারা তো মুসলে হায়ান!

সত্য থেকে আজ কক্ষচ্যুত বিচ্যুত মোরা

আমি যদি হই সুন্নী, আমার আহমদ ছিল কি রে?

কি শিয়া! কি সুন্নী! কি মুমিন মুসলমান?

এ বিভেদ কেন মোদের ঘরে শয়তানী ফরমান!

মোরা ইব্রাহিমের, আদমের সন্তান।

মুসলমানের ঘরে আগুন, দেখলে যারা খুশি হয় দ্বিগুন

সেই হনুমানে লেজের আগুন ছড়ায় সবার ছাদে

বিশ্ব মুসলিম আজ পড়েছে, সেই সে কঠিন ফাঁদে।

আজ কেন হেতা হানাহানি, ভুল বুঝাবুঝি

ভাই এ ভাই এ কেন মন কষাকষি

চলো ভেঙ্গে চলি যত বিভেদের বেড়াজাল,

ফাতেমী, ওহাবী, খারেজী যত জন্মানো জঞ্জাল।

এক করি সব, খন্ড খন্ড রব ভুলে যাই সব পাপ পরিতাপ

নিংগাড়ি আজি বের করি বাণী যা নিয়ে এসেছে মরূতে মুহাম্মদ!

পিয়াবো সেথায় যে মদিরা মোরা অমৃতজানি,

ফেলে দেবো ছুঁড়ে জন্মানো সব আগাছার খণি,

মক্কা বিজয় করবো ফের,

বকর, ওমর, আলী ওসমান হবো মোরা

শিয়া সুন্নীর গোলামী করে নি কভু তারা।

তাদের মোরা ইসলামেরই সেরা জানি

সত্য তাদের তন্ত্র ছিল মন্ত্র ছিল কুরআনখানি

দীক্ষা নেব নতুন করে, আজ সবাই

কুরবানেরই করাতে পাপ করবো কেটে জবাই।

জমানো জঞ্জাল যত মিলেমিশে অবিরত

বিদায় করবো, বিনাশ করবো ধরবো সঠিক পথ।

ঈশ্বর পুত্র যেমনি দেবে না জবাব শিষ্যের ডাকে

চার খলিফা থাকবে দূরে, শিয়া সুন্নী পড়বে পাঁকে

ধিক্কার দেবে শেষ ময়দানে, চার খলিফাসহ মুহাম্মদে।

এই বুঝি ছিল শেষ পরিনাম, হাসান – হোসেন দিয়েছিল প্রাণ?

সত্যেরে আর করিসনে করিসনে করিসনে অপমান!

“শিয়া সুন্নী দ্বন্ধে মুসলিম বিশ^ ভাঙ্গনের ঝুকিতে: এরদোগান”

খবরের শিরোনামটি মনকে নাড়া দেয় অতীতের মত আজ আবারো।

মুসলিম বিশে^র জন্য আল্লাহর হেফাজতই শুধু নয়, মুক্তির পথ খুঁজতে হবে তার অনুসারীদেরকে।

আর ঐ সঠিক নির্দিষ্ট পথেই হাটতে হবে, নয়তো ঘোর অন্ধকার সামনে পেছনে সবদিকে।

নির্মল ইসলামের মাঝে “শিয়া সুন্নী” একটি জটিল দূরারোগ্য অসুস্থতার নাম। একে শিকড় শুদ্ধ উপড়ে ফেলতে হবে। কালের অবগাহনে গড়ে উঠা এ এক বাড়তি জঞ্জাল যা আমাদের ক্ষতি ছাড়া লাভ করে নি। মাত্র দুটি আয়াত আনছি নষ্ট কৃতকর্মের উদাহরণ হিসাবে যা নির্দেশ করে আমরা ঘোর অন্ধকারে পতিত হয়ে আছি।

স্মরণ করুন “আর তাদের মত হয়ো না যারা বিচ্ছিন্ন হয়েছিল আর মতভেদ করেছিল তাদের কাছে সুস্পষ্ট নির্দেশাবলী আসার পরেও। আর এরা – এদের জন্য আছে কঠোর যন্ত্রণা” (সুরা আল ইমরানের ১০৪ আয়াত)

“নিঃসন্দেহ যারা তাদের ধর্মকে বিভক্ত করেছে এবং বিভিন্ন দল হয়ে গেছে। তাদের জন্য তোমার (মুহাম্মদের) কোন দায়দায়িত্ব নেই। নিঃসন্দেহ তাদের ব্যাপার আল্লাহর কাছে। তিনিই এরপরে তাদেরে জানাবেন যা তারা করে চলতো” (সুরা আন আমের ১৬০ আয়াত)

Tag Cloud

%d bloggers like this: